Categories
জিজ্ঞাসা

ভালো শেয়ার চেনার উপায়

অর্থনীতির উন্নয়নের সঙ্গে প্রতিদিন শেয়ারবাজারে গুরুত্ব বাড়ছে। বর্তমানে শেয়ারবাজারের মূলধন মোট জিডিপির প্রায় ২০ শতাংশ। আর সাম্প্রতিক সময়ে দেশের শেয়ারবাজারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেড়েছে।

ইলেট্রনিক পদ্ধতিতে শেয়ার সংরক্ষণকারী কোম্পানি সিডিবিএলের তথ্য মতে, বর্তমানে বিও অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ২৭ লাখ ১২ হাজার। আর প্রতিদিনই এ সংখ্যা বাড়ছে।

তবে বিশাল অঙ্কের এ বিনিয়োগকারীদের বেশিরভাগেরই শেয়ারবাজার সম্পর্কে ধারণা নেই। মূলধন হারিয়ে আবার ফিরে যাচ্ছে। ফলে শেয়ারবাজার বিনিয়োগ বললেই মানুষের মধ্যে অজানা আতঙ্ক চলে আসে।

তাই শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করতে হলে কয়েকটি বিষয়ে ধারণা থাকতে হবে। এর মধ্যে রয়েছে ফান্ডামেন্টাল এবং টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস। ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিসের মধ্যে কোম্পানির মৌলভিত্তি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস কোম্পানির শেয়ারের মুভমেন্ট বলে দেবে। এভাবে বিশ্লেষণ করে বাজারের ভালো শেয়ার সম্পর্কে একটি ধারণা পাওয়া যাবে।

শক্তিশালী মৌলভিত্তি সম্পূর্ণ শেয়ারের বেশ কিছু বৈশিষ্ট রয়েছে। এর মধ্যে বিনিয়োগের জন্য প্রথমত শেয়ারের সম্পদ মূল্য দেখতে হবে। সংক্ষেপে বলা হয়, নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি) প্রকৃত সম্পদ মূল্য ভালো শেয়ার সম্পদ মূল্য বেশি থাকে।

দ্বিতীয় শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস। একটি কোম্পানি প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে কী পরিমাণ আয় করছে, বিনিয়োগের জন্য তা অবশ্যই বিবেচনা করা উচিত। এরপর শেয়ারের মূল্য ও আয়ের অনুপাত (পিই রেশিও) : কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় এবং শেয়ারের বর্তমান বাজারমূল্যের অনুপাত। এটি বাজারের সবচেয়ে বড় মাপকাঠি। এ অনুপাত যত কম, শেয়ার তত ঝুঁকিমুক্ত।

বিশ্লেষকদের মতে, বাজারের অন্যতম আরেক মাপকাঠি হল কোম্পানির লভ্যাংশ বা ডিভিডেন্ড। এ লভ্যাংশ কখনও নগদ বা বোনাস শেয়ার হতে পারে। তবে ভালো কোম্পানিগুলো নগদ লভ্যাংশ বেশি দেয়।

এ ছাড়া রয়েছে কোম্পানির বুক ভ্যালু ও প্রবৃদ্ধির হার। অন্যদিকে কোম্পানির উদ্যোক্তা হিসেবে কারা রয়েছে, তাদের পেছনের রেকর্ড অবশ্যই বিনিয়োগের জন্য বিবেচনায় নিতে হবে।

বিনিয়োগকারীরা কোনো কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ করলে ঝুঁকির মাত্রা কম থাকবে সেটি কয়েকটি বিষয় বিশ্লেষণ করে জানতে হবে। এর মধ্যে কোম্পানির ফান্ডামেন্টাল এবং টেকনিক্যাল এনালাইসিস করতে হবে। কোন কোম্পানি আর্থিকভাবে কত বেশি শক্তিশালী তা কোম্পানির মৌলভিত্তি দিয়ে জানা যাবে।

যে কোম্পানির শেয়ার কেনা হবে, তার বর্তমান আয়, বার্ষিক আয়, কোম্পানি নতুন কোনো পরিবর্তন আসছে কিনা, কোম্পানির পণ্য সরবরাহ কেমন, নেতৃত্বে কারা আছে, কোম্পানির শেয়ারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ কেমন এবং সবশেষে ওই কোম্পানির পণ্যের বাজারে

চাহিদা কেমন আছে। যিনি পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে আগ্রহী তার প্রথম কাজ হবে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির আর্থিক বিবরণ সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা নেয়া। প্রতিটি কোম্পানি প্রতি বছর বার্ষিক আয় -ব্যয় সংবলিত একটি প্রতিবেদন পেশ করে। ওই প্রতিবেদন সংগ্রহ করে কোম্পানির আর্থিক অবস্থা সম্পর্কে জানতে হবে।

শেয়ারবাজারের কয়েকটি টার্ম

প্রাইমারি : প্রাইমারি শেয়ার হল কোম্পানি শেয়ার ছেড়ে সরাসরি জনগণের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহের মাধ্যমে তাদের মূলধন বাড়ায়। বাজারে মূলধন বাড়াতে ইচ্ছুক এমন কোম্পানি একটি ইস্যু ম্যানেজারের মাধ্যমে তাদের কোম্পানির আরেকজন অংশীদার হওয়ার জন্য জনগণের কাছ থেকে আবেদনপত্র আহ্বান করে এবং জনগণ কোম্পানির অ্যাকাউন্টে আবেদনকৃত অর্থ জমা দেয়।

সেকেন্ডারি : শেয়ারের ক্রেতা এবং বিক্রেতার সমন্বয়ে সেকেন্ডারি মার্কেট গঠিত হয়। একজন বিনিয়োগকারী প্রাথমিক শেয়ার লাভ করার পর তা বিক্রি করতে চাইলে তা সেকেন্ডারি মার্কেটের মাধ্যমে বিক্রি করতে হবে।

ইপিএস : শেয়ারপ্রতি নিট মুনাফা বোঝায়। যেমন শেয়ারপ্রতি আয় বের করতে হলে কর বাদে কোম্পানির নিট মুনাফাকে মোট সাধারণ শেয়ার দিয়ে ভাগ করতে হবে।

ডিভিডেন্ড : এটি কোম্পানি কর্তৃক প্রতি শেয়ার মূল্যের ভিত্তিতে বিতরণকৃত লভ্যাংশকে বোঝায়। যে কোম্পানি বেশি লভ্যাংশ দেয় সেই কোম্পানির শেয়ার তত বেশি ভালো।

Categories
জিজ্ঞাসা

MACD Crossover

গতির পরিপ্রেক্ষিতে দুটি moving average –ই ভিন্নতর। স্বভাবতই দ্রুতগতিসম্পন্ন moving average ধীরগতিসম্পন্ন moving average অপেক্ষা দামের পরিবর্তনের সাথে দ্রুত পরিবর্তিত হবে। যখনই একটি নতুন ট্রেন্ডের সৃষ্টি হয় তখন দ্রুতগতিসম্পন্ন moving average টি দ্রুত সাড়া দেয় এবং ধীরগতি রেখাটিকে অতিক্রম করে। Crossover-এর ক্ষেত্রে দ্রুতগতি রেখাটি ধীরগতি রেখা হতে দূরে সরে যায় (diverge) যা সাধারণতঃ নতুন ট্রেন্ড সৃষ্টির ইংঙ্গিত দেয়। এখন আমরা একটি উদাহরনের মাধ্যমে জিনিস গুলি বুঝার চেষ্টা করব। উপোরোক্ত চার্টে আমরা দেখতে পাই দ্রুতগতি রেখাটি ধীরগতি রেখাটিকে নিচের দিক হতে অতিক্রম করছে যা downtrend নির্দেশ করছে। লক্ষ্য করূন, যে পয়েন্টে রেখাগুলি পরস্পরকে অতিক্রম করছে (Crossover) সে পয়েন্টেই histogram সাময়িকভাবে মিলিয়ে যায়। খুব ভাল ভাবে লক্ষ্য করুন দিকে একটি সময়ে histogram দেখা যাচ্ছে না। এর কারন হলো অতিক্রান্ত সময়ে রেখাগুলির পার্থক্যমান শূন্য হয়ে যায় ফলে কোন histogram দেখা যায় না । যেইমাত্র downtrend শুরু হয় তখন দ্রুতগতি রেখাটি ধীরগতি রেখা হতে দূরে সরে যায়, ফলে histogram বর্ধিত হয় যা একটি শক্তিশালী ট্রেন্ডের ইংঙ্গিত বহন করে। ঠিক uptrend এর সময়ে ও একই ঘটনা ঘটে থাকে। MACD-র একটি বড় অসুবিধা হচ্ছে মন্থরতা যা একইসময়ে দামের সাথে পরিবর্তিত না হয়ে বরং ধীর গতিতে দামকে অনুসরন করে। তাই এই ইন্ডিকেটি Lagging ইন্ডিকেট বলে পরিচিত, তবে এই ইন্ডিকেটরটি কোন trend সংগঠিত হবার পর সিগন্যাল দিয়ে থাকে ফলে ভুল হবার সম্ভাবনা কম। এবং এটি হছে অতীত মূল্যের গড় । যদিও MACD-র গতি মন্থর কিন্তু এটি ট্রেডারদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় ইন্ডিকেটর।

Categories
জিজ্ঞাসা

Bollinger Bands বুলিনজার বেন্ড

বুলিনজার ব্যান্ডের মাধ্যমে বাজারের পরিবর্তন(ওঠানামা) পরিমাপ করা হয়। মুলতঃ এই অনুসংঘটি আমাদের বাজার কখন স্থির কিম্বা প্রসারিত এই সম্পর্কে ধারণা দেয়।যখন বাজার স্থির থাকে তখন ব্যান্ডগুলো সংকুচিত হয় এবং যখন বাজার বিস্তৃতি লাভ করে তখন ব্যান্ডগুলো প্রসারিত হয়।লক্ষ্য করুন,নিন্ম চিত্রে যখন দামের তেমন কোন পরিবর্তন ঘটে না তখন ব্যান্ডগুলো পরস্পরের কাছাকাছি অবস্থান করে আর যখন দাম বাড়তে শুরু করেছে তখন ব্যান্ডগুলো ছড়িয়ে গেছে। বুলিনজার ব্যান্ডের একটি দিক সম্পর্কে আপনার ধারণা থাকা প্রয়োজন তা হচ্ছে মূল্যের প্রবণতাই থাকে ব্যান্ডের মাঝামাঝিতে ফিরে আসা।এটি হচ্ছে বলিংঙ্গার বাউন্সের মূল ধারনা। যদি তাই হয় তবে নিন্মোক্ত চিত্র পর্যবেক্ষন করে বলুন দাম পরবর্তীতে কোনদিকে যাবে? যদি আপনি বলেন দাম নিচে নেমে আসবে তবে তা সঠিক। আপনি দেখতে পাচ্ছেন দাম আবার ব্যান্ডের মাঝামাঝি স্থানে ফিরে এসেছে। আপনি এইমাত্র যা পর্যবেক্ষন করলেন তা একটি ক্লাসিক বুলিনজার বাউন্স। এই বাউন্সটি সংঘটিত হয়েছে কারন বুলিনজার ব্যান্ডটি একটি ছোটখাটো সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স হিসেবে কাজ করেছে।যত বেশি সময় আপনি বলিংঙ্গার ব্যান্ডে যুক্ত করবেন তত ব্যান্ডগুলি শক্তিশালী হবে।অনেক ট্রেডাররা বলিংঙ্গার বাউন্সেকে কাজে লাগিয়ে সফল হয়েছেন এবং এই স্ট্র্যাটিজি সবচেয়ে সফল যখন বাজার বিস্তৃতি লাভ করে এবং যখন অনান্য ট্রেন্ডগুলি হতে আমরা সুস্পষ্ট ইংগিত পাই না। একটি ট্রেন্ড বুঝার জন্য।

Categories
জিজ্ঞাসা

Bollinger Squeeze বুলিনজার স্কুইজ

বলিংঙ্গার স্কুইজ দেখেই আমরা এর বৈশিষ্ট্য বুঝতে পারি। যখন ব্যান্ডগুলো পরস্পর সংকুচিত হয় তার অর্থ হলো ব্রেকাউটের সমূহ সম্ভাবনা আছে ।যদি ক্যান্ডেলস্টিকগুলো উপরের ব্যান্ডকে অতিক্রম করে যায় এবং স্থায়ী হয় তবে তা uptrend নির্দেশ করে।আর যদি ক্যান্ডেলস্টিকগুলো নিচের ব্যান্ডকে অতিক্রম করে তবে তা ট্রেন্ডে downtrend নির্দেশ করে।চার্ট –এ আপনি দেখতে পাচ্ছেন ব্যান্ডগুলো পরস্পরের দিকে সংকুচিত। পরের দিন একটি bullish Candlestick তৈরি করেছে। পরের দিন দাম Bollinger এর উপরের ব্যান্ডকে অতিক্রম করছে। এই তথ্যের উপর ভিত্তি করে আপনি কি সিদ্ধান্ত নিবেন? যদি আপনি ভাবেন uptrend তবে আপনার ধারনা সঠিক। চিত্র টি লক্ষ্য করুন। সাধারণতঃ এইভাবে বলিংঙ্গার স্কুইজ কাজ করে। এই স্ট্র্যাটিজি এভাবে তৈরিকরা হয়েছে যাতে আপনি তড়িৎ একটি ট্রেন্ড বুঝতে পারেন। তবে আপনাকে অবশ্যই কিছুটা সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে কারন পরের দিন ব্যান্ডটি স্কুইজ না ও করতে পারে। কিন্তু যদি স্কুইজ করে তবে ধরে নিতে হবে স্কুইজটি বেশ কয়েকদিন স্থায়ী হবে এবং খুব বর একটি দামের পরিবরতিন ঘটবে। এ ধরনের বৈশিষ্ট্য প্রতিদিন খুঁজে পাওয়া যায় না কিন্তু আপনি সপ্তাহের কোন কোন সময় এই বৈশিষ্ট্য খুঁজে পাবেন যদি আপনি ৫/৭ দিনের চার্ট পর্যবেক্ষন করেন।

Categories
জিজ্ঞাসা

Bearish Candlestick Pattern বেয়ারিশ ক্যান্ডেলস্টিক প্যাটার্ন

1.Long black (filled-in)line: এটি একটি বিয়ারিশ রেখা।একটি নির্দিষ্ট সময়ে প্রারম্ভিক মূল্য সর্বোচ্চের কাছাকাছি থেকে শুরু হয়ে সর্বনিন্ম মূল্যের কাছে গিয়েই শেষ হয়।

2.Hanging man: এই রেখাগুলি বিয়ারিশ যা uptrend এর পর সৃস্টি হয়।যদি এই রেখাগুলি downtrend এর পর তৈরি হয় তবে আমরা একে hammer বলবো।এদের ছোট শরীর (প্রারম্ভিক মূল্য ও সমাপ্তি মূল্যের অল্প পার্থক্য) ও নিচের দিকে লম্বা ছায়া (সর্বোনিন্ম মূল্য প্রারম্ভিক, সর্বোচ্চ, সমাপ্তি মূল্যের চেয়েও নিচে অবস্থান করে) দেখে এদের চিহ্নিত করা যায়।এটি পূর্ণ কিম্বা খালি থাকে।

3.Dark cloud cover. এই কেন্ডেলটি একই বিয়ারিশ কেন্ডেল যা আগের দিনের কেন্ডেলের শমাপ্তি মূল্যর ওপরে থেকে শুরু হয় এবং আগের দিনের কেন্ডেলকে ঢেকে ফেলে।

4.Bearish engulfing lines: এটি একটি বিয়ারিশ প্যাটার্ণ। সাধারণতঃ এটি uptrend এর পর সৃস্টি হয়(এটি রিভেরসেল হিসেবে কাজ করে)।যখন ছোট বুলিশ(খলি) রেখাটি একটা বড় বিয়ারিশ রেখা(পূর্ণ) দ্বারা আবৃত থাকে।

5.Evening star: এটি একটি বিয়ারিশ প্যাটার্ণ যা সম্ভাব্য শীর্ষবিন্দু নির্দেশ করে।এখানে সটারটি রিভারসেলের সম্ভাবনা নির্দেশ করে এবং বিয়ারিশ রেখাটি এই নির্দেশনাকে সমর্থন করে।স্টারটি পূর্ণ বা খালি থাকতে পারে। 6.Doji star: স্টারটি রিভেরসেলের এবং ডজিটি সিদ্ধান্তহীনতা নির্দেশ করে।যদিও এটি অনিশ্চিত সময়ে রিভারসেলের ইঙ্গিত দেয়।নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত এই ডজি দেখার পর আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে। 7.Shooting star: এই প্যাটার্ণটি অল্পস্বল্প রিভারসেলের ইঙ্গিত দেয় যা সাধারণতঃ রেখার মিছিলের পর প্রতিভাত হয়। সর্বনিন্ম মূল্যের কাছাকাছি স্টারটি পরিলক্ষিত হয় এবং এর উপরের দিকে একটি দীর্ঘ লম্বা ছায়া থাকে।

Categories
জিজ্ঞাসা

Bullish Candlestick Pattern , বুল্লিশ ক্যান্ডেলস্টিক প্যাটার্ন

1.Long white (empty)line: এটি হচ্ছে একটি বুলিশ রেখা ।এটি সৃষ্টি হয় যখন প্রারম্ভিক মূল্য সর্বনিন্ম থেকে শুরু হয়ে একেবারে দিনের সর্বোচ্চ প্রান্তে কাছাকাছি গিয়ে শেষ হয় ।

2.Hammer: এটি একটি বুলিশ রেখা । সাধারণতঃ এটি একটি downtrend এর পর সৃষ্টি হয় । যদি এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ uptrend এর পর সৃষ্টি হয় তবে এটকে Hanging man বলা হয় । হ্যামার সাধরণত একটি ছোট শরীর (প্রারম্ভিক মূল্য ও সমাপ্তি মূল্যের অল্প পার্থক্য) ও নিচের দিকে লম্বা ছায়া থাকে (সর্বোনিন্ম মূল্য প্রারম্ভিক, সর্বোচ্চ, সমাপ্তি মূল্যের চেয়েও নিচে অবস্থান করে).

3.Piercing Line: এটি বুলিশ রেখা এবং ডার্ক ক্লাউড কাভারের বিপরীত । প্রথম লম্বা রেখাটি সম্পূর্ণ কালো এবং দ্বিত্বীয় লম্বা রেখাটি সাদা হয়ে থাকে। প্রথম রেখাটির নিন্মস্তরের চেয়েও নিচে হতে দ্বিত্বীয় রেখাটি শুরু হয়। কিন্তু এটি প্রথম রেখাটির মধ্যবর্তী অংশের কিছু উপরে গিয়ে শেষ হয় ।

4.Bullish engulfing lines: এটি একটি জোরালো বুলিশ প্যাটার্ণ যা একটি গুরুত্বপূর্ণ downtrend পর দেখা যায় (এটি রিভারসেল হিসেবে কাজ করে)। যখন একটি ছোট বিয়ারিশ(bearish)রেখা বড় বুলিশ(bullish)রেখা দ্বারা আবৃত থাকে তখন এটি সৃষ্টি হয়।

5.Morning star: এটি ও একটি বুলিশ প্যাটার্ণ যা নিন্মের গতি নির্দেশ করে ।এখানে সটারটি রিভারসেলের সম্ভাবনা এবং বুলিশ (খালি) রেখাটি সে সম্ভাবনাকে নিশ্চিত করে ।এ স্টারটি পূর্ণ বা খালি থাকতে পারে। 6.Bullish doji star: সটার রিভারসেল নির্দেশ করে ও ডজি সিদ্ধান্তহীনতা প্রকাশ করে ।যদিও এটি অনিশ্চিত সময়ে রিভারসেল প্রদর্শণ করে।ট্রেড এর নিশ্চয়তার জন্য ডজি দেখলেই অপেক্ষা করতে হবে।প্রথম রেখাটি পূর্ণ বা খালি থাকতে পারে।

Categories
জিজ্ঞাসা

আপনাদের অ্যাপস থেকেআরএসআই, মানি ফ্ল চার্ট সম্পর্কে কিভাবে জানতে পারি।

কোন একটি স্টকে ঢোকার পর নিচে তাকালে চাট আছে। আর ওয়েবসাইটে হলে বামে চার্টের আন্ডারে এডভান্স এ ক্লিক করলে আর এস আই দেখতে পাবেন। আর এম এফ আই ইন্ডিকেটরটি সেট করে নিলে দেখতে পাবেন ধন্যবাদ।

Categories
জিজ্ঞাসা

পেইড আপ ক্যাপিটাল ও অথারাইজড ক্যাপিটাল সম্পর্কে বুঝিয়ে বলুন

Paidup ক্যাপিটাল বোঝায় সময় সময় কি পরিমাণ মূলধন শেয়ারহোল্ডার বরাদ্দকৃত শেয়ারের বিপরীতে বিনিয়োগ করেছে। এসব কোম্পানির শেয়ার হোল্ডারদের দায়দায়িত্ব শুধুমাত্র তাদের শেয়ারের অংক পর্যন্ত সীমাবদ্ধ থাকে। অর্থাৎ কোম্পানি দেওলিয়া হয়ে গেলেও তাদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি থেকে পাওনাদারদের দাবি পূরণের দায় দায়িত্ব থাকে না।

অনুমোদিত মূলধন বলতে বুঝায় কোম্পানি ভবিষ্যতে সর্বমোট কি পরিমান মূলধন শেয়ারহোল্ডারদের থেকে জোগাড় করতে পারে। প্রত্যেক কোম্পানির একটি নির্দিষ্ট মূলধন অনুমোদন করতে হয়। কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের সভায় এ অনুমোদনের প্রস্তাব গৃহীত হয় এবং পরে তা  চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে পাঠানো হয়। এসইসির অনুমোদন পাওয়ার পর তা কার্যকর হয়। এটি অথরাইজড ক্যাপিটাল বা অনুমোদিত মূলধন বলে বিবেচিত হয়।

পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি ও প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানির অথরাইজড ক্যাপিটাল ও পেড আপ ক্যাপিটাল থাকে।

কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যদি প্রাইভেট বা পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে নিবন্ধন করা হয় তাহলে অথরাইজড ক্যাপিটাল ও পেইড আপ ক্যাপিটালের ব্যবস্থা রাখা হয়ে থাকে। অথরাইজড ক্যাপিটাল বুঝায় কোম্পানি ভবিষ্যতে সর্বমোট কি পরিমান মূলধন শেয়ারহোল্ডারদের থেকে জোগাড় করতে পারে। Paid-up ক্যাপিটাল বোঝায় সময় সময় কি পরিমাণ মূলধন শেয়ারহোল্ডার বরাদ্দকৃত শেয়ারের বিপরীতে বিনিয়োগ করেছে।

এসব কোম্পানির শেয়ার হোল্ডারদের দায়দায়িত্ব শুধুমাত্র তাদের শেয়ারের অংক পর্যন্ত সীমাবদ্ধ থাকে। অর্থাৎ কোম্পানি দেওলিয়া হয়ে গেলেও তাদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি থেকে পাওনাদারদের দাবি পূরণের দায় দায়িত্ব থাকে না।

ব্যক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হিসাবে নিবন্ধন করা হলে অথরাইজড ক্যাপিটাল বা পেইড আপ ক্যাপিটালের সংস্থান রাখা হয় না। পাওনাদারদের দায়দেনা মেটাতে প্রতিষ্ঠানে তাদের বিনিয়োগকৃত অর্থ অপ্রতুল হলে তারা ব্যক্তিগতভাবে তা পূরণের দায় দায়িত্ব বহন করে।

পার্টনারশিপের ক্ষেত্রেও একই কথা খাটে। প্রত্যেক পার্টনাররা ব্যাংক ঋণ ও অন্যান্য দায়-দায়িত্ব পূরণের জন্য ব্যক্তিগতভাবে দায়ী থাকে। তবে কোন কোন দেশে, নির্দিষ্ট এক বা একাধিক পার্টনারদের দায় দায়িত্ব তাদের বিনিয়োগকৃত অর্থের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে। তারা সাধারণত ঘুমন্ত পার্টনার, ব্যবসায়িক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে না, লভ্যাংশ গ্রহণ করে কিন্তু সীমাহীন দায়িত্ব গ্রহণ করে না। এধরনের পার্টনারশিপে অন্তত একজন পার্টনার থাকে যে ব্যবসা পুরো দায়িত্ব বহন করে।

Categories
জিজ্ঞাসা

ডিভিডেন্ড পে-আউট রেশিও কি? কিভাবে ক্যালকুলেট করে? গুরুত কি?: DIVIDEND PAYOUT RATIO

ডিভিডেন্ড পে-আউট রেশিও বলতে বুঝায়, কোন একটি নির্দিষ্ট কোম্পানি তার শেয়ার হোল্ডারদের জন্য বাৎসরিক যে ডিভিডেন্ড দেয় সেটা তার মোট আয়ের কত অংশ। অর্থাৎ মোট আয়ের কত অংশ ডিভিডেন্ড হিসাবে দিচ্ছে।ডিভিডেন্ড পে-আউট রেশি এর সুত্রঃ

    ডিভিডেন্ড পে-আউট = ডিভিডেন্ড / মোট আয়(ইপিএস)

​উদাহরনঃ
ধরা যাক, সামিট পাওয়ার কোন এক বছরের জন্য তাদের শেয়ার হোল্ডারদের জন্য ৩৫% ক্যাশ ডিভিডেন্ড দিয়েছে, যেখানে কোম্পানির টোটাল ইপিএস বা শেয়ার প্রতি আয় ৪ টাকা ৫০ পয়সা।

​অতএব, ডিভিডেন্ড পে-আউট রেশিও
= ৩৫%/৪.৫*১০০
= (৩৫/১০০)/৪.৫*১০০
= ৭৭.৭৮%

অর্থাৎ কোম্পানি তার মোট আয়ের ৭৭.৭৮% ডিভিডেন্ড হিসাবে তার শেয়ার হোল্ডারকে দিয়েছে। 

পে-আউট রেশিও কতটুকু গুরতপুর্ণ?

১) লং টার্ম ইনভেস্টমেন্ট সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য ডিভিডেন্ড পে-আউট রেশিওর গুরুত অনেক বেশি। যেহেতু আপনি লং বিনিয়োগ করবেন। এই সময়ের মধ্যে শেয়ার বিক্রি করবেন না আবার এই শেয়ারগুলো থেকে নিয়মিত ইনকামও আশা করেন তাদের জন্য কোম্পানির ডিভিডেন্ড পে-আউট রেশিও খুবই গুরুতপুর্ণ। কোম্পানি তার আয়ের কত অংশ শেয়ার হোল্ডারদের দেয় সেটা নির্নয় করলে সেটা পাওয়া যায়।

২) সাধারনত মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলো তার আয়ের সীমিত অংশ রেখে বাকি অংশ শেয়ার হোল্ডারদের দিয়ে দেয়। এর কারন বিদেশী বিনিয়োগকারিরা বিনিয়োগ করে ক্যাশ টাকার জন্য, ডিভিডেন্ডের অর্থ তারা তুলে নিতে পারে। যেহেতু বিদেশী বিনিয়োগকারীরা এই শেয়ার বেশি ধারন করে তাই এই শেয়ারের ফ্লো বাজারে কম থাকে এবং যার ফলে শেয়ারের বাজার মূল্য বেশি হয়।

৩) টেকনোলজিক্যাল কোম্পানিগুলো তাদের আয়ের কিছু অংশ দেয়, বাকি অংশ পুনরায় বিনিয়োগের জন্য রেখে দেয়। কারন টেকনোলোজি বেজড কোম্পানিগুলোর অনেক মুলধন লাগে ব্যবসা চালিয়ে রাখার জন্য। এই ধরনের কোম্পানিগুলো ধীরে ধীরে গ্রো করে এবং এর শেয়ার ভ্যালু বৃদ্ধি পায়। 

Categories
জিজ্ঞাসা

SPOT MARKET বা স্পট বাজার কী?

স্পট মার্কেট অথবা ক্যাশ মার্কেট হল একটি পাবলিক বাজার যেখানে তাত্ক্ষণিক Settlement এ ব্যবসা হয়। স্পটে ক্রয়ের ক্ষেত্রে নগদেই ক্রয় করতে হয় তাই একে ক্যাশ মার্কেটও বলা হয়। শেয়ার বাজারের ক্ষেত্রে সাধারণত কোন স্টক বিক্রয় করতে মেচুরিটি সময়  T+2  বা ২ কার্যদিবস সময় লাগে ( Z ক্যাটেগরির ক্ষেত্রে 3 কার্যদিবস ) অথচ স্পট বাজারে যে দিন শেয়ার ক্রয় করা হয় তার পরদিনই সে শেয়ারটি বিক্রয় করা যায় ।

স্পট বাজারের লেনদেনও শেয়ার বাজারের অন্য যেকোন স্বাভাবিক দিনের বাজার ও লেনদেনের নিয়মেই ট্রেড প্লাটফর্মে সংঘটিত হয় । এজিএম , ইজিম এবং রেকর্ড ডেটের আগে সাধারণত ২ দিন একটি শেয়ার স্পট মার্কেটে থাকতে পারে , সেক্ষেত্রে স্টক এক্সচেঞ্জের সাথে সামঞ্জস্য করে স্পটে থাকার তারিখ ঘোষনা করে কোম্পানি ।

Stock মার্কেট এনালাইসিস পদ্ধতি শিখতে visit করুন StockNow youTube channel  StockNow সকল অফার পেতে এখনই সংযুক্ত হন আমাদের পেইজেনতুন ফিচার অথবা অফার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে কল করুন:01720149121,  0160 999 8469  অথবা আমাদে মেইল করতে পারেন[email protected] আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন