Categories
জিজ্ঞাসা

চার্ট দেখে মার্কেটের সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্ট বুঝিনা।এটা বোঝার উপায় কি?

সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স

ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত একটি টুল। ট্রেডারদের সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্স নির্নয় করার জন্য ট্রেডারদের ভিন্ন মতামত থাকতে পারে। চলুন দেখি

কালো যেই লাইনটা দেখছেন সেটাকে প্রাইস ধরুন। প্রাইস ১টা পয়েন্টে গিয়ে আবার ফিরে আসছে আবার আর একটা পয়েন্টে গিয়ে দিক পরিবর্তন করছে। যখন প্রাইস উপরের দিকে উঠে আর এক পয়েন্টে গিয়ে ঠেকে যায় (মানে সেই পয়েন্ট ভাঙতে পারে না) আর ফেরৎ আসে সেটাকে রেজিস্টেন্স বলে। যখন প্রাইস নিচের দিকে নামে আর এক পয়েন্টে গিয়ে ঠেকে যায় (মানে সেই পয়েন্ট ভাঙতে পারে না) আর ফেরৎ আসে সেটাকে সাপোর্ট বলে।  সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স আপনাকে পরবর্তী মার্কেট কন্ডিশনের পূর্বাভাস দিতে পারে।

চার্টে সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স বসানো

একটা জিনিস সবসময় মনে রাখবেন যে সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স কোন নির্দিষ্ট নম্বর অথবা সংখ্যা নয়।

প্রায়ই দেখবেন যে সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স ভেঙেছে কিন্তু তারপর দেখবেন যে মার্কেট সেই লেভেলগুলোকে টেস্ট করছিল যা পরবর্তীতে ক্যান্ডেলস্টিক শ্যাডো আকারে দেখা যায়।

সাপ্লাই ও ডিমান্ড

প্রথমে ১.৫৬৮২ তে আমরা রেজিস্ট্যান্স একেছি। লক্ষ্য করুন যে প্রাইস সেই রেজিস্টেন্স ভেদ করে গেছে কিন্তু আবার নিচে নেমে এসে রেজিস্টেন্সের নিচে ক্লোজ হয়েছে।

আবার ১.৫৫৪৬ এ দেখুন। প্রাইস কয়েকবার ১.৫৫৪৬ এর নিচে গেছে কিন্তু ক্লোজ হয়েছে ১.৫৫৪৬ সাপোর্ট লাইনের উপরে।

সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স সবসময় প্রাইসকে এক জায়গায় ঠেকিয়ে রাখবে না। সেটা ব্রেক ও করবে।

কি ভাবে জানব যে সেটা ব্রেক করেছে?

আসলে এটার কোন উওর নেই। কেউ কেউ বলে যে যদি প্রাইস সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স লাইনের বাইরে ক্লোজ হতে সক্ষম হয় তাহলে বুঝতে হবে যে তা ব্রেক করেছে। কিন্তু যখন আপনি পরীক্ষন করবেন, তখন দেখবেন যে এটা সবক্ষেএে সত্য না। চলুন দেখি

ট্রেন্ড ব্রেক

উপরের চার্টটিতে ১.৪৪৫৭ এ প্রাইস রেজিস্টেন্স ব্রেক করেছে আবার ১.৪১২৬ এ প্রাইস সাপোর্ট ব্রেক করেছে। কিন্তু পরবর্তীতে দেখলেন যে প্রাইস সেই লেভেলগুলোকে আসলে টেস্ট করছিল। এইসব ফলস ব্রেকআউট থেকে কিভাবে বাচা যায়? আমরা যদি সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্সকে জোন: হিসেবে ধরি তাহলে ফলস ব্রেকআউট থেকে বাচতে পারি। চলুন দেখি

সাপ্লাই ডিমান্ড জোন

একই চার্টে আমরা সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্সকে জোন হিসেবে আকলাম। এখন আপনি দেখতে পাচ্ছেন যে আসলে প্রাইস ওই লেভেলগুলো টেস্ট করছিল। 

সাপোর্ট ও রেজিস্টেন্স সম্পর্কে আর একটা কথা, যখন সাপোর্ট ব্রেক করে, তারপর সেটা রেজিস্টেন্স হয়। আর রেজিস্টেন্স যখন ব্রেক করে তখন সেটা সাপোর্ট হয়। এটা ভালভাবে বুঝতে উপরের চার্টের পুর্বের প্রাইস লেভেলগুলো ভালভাবে দেখুন।


মার্কেট চার্টে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্ট বোঝার জন্য কয়েকটি মৌলিক ধারণা আছে।

  1. সাপোর্ট (Support): সাপোর্ট হচ্ছে মূল্যের একটি স্তর যা মার্কেটের আপনির বা অন্য ট্রেডারদের মতো একটি নির্দিষ্ট মূল্যের নিকটে থাকতে সহায় করে। যখন মূল্য এই স্তরে পৌঁছায়, তখন এটি একটি সাপোর্ট স্তর হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সাপোর্ট স্তরে মূল্যের ক্ষতি বন্ধ হতে পারে এবং এটি মূল্য উঠতে পারে অথবা একটি টার্মিনাল হতে পারে যা নতুন একটি উত্তোলন শুরু করতে পারে।
  2. রেজিস্ট্যান্ট (Resistance): রেজিস্ট্যান্ট হচ্ছে মূল্যের একটি স্তর যা মার্কেটের উচ্চ প্রতিরোধ দেখায়। এটি মূল্যের একটি নির্দিষ্ট স্তর, যা প্রতিটি উচ্চ বার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। রেজিস্ট্যান্ট স্তরে মূল্য বারবার বাধা পায় এবং এটি একটি বাড়ান্ত হতে পারে অথবা একটি নতুন ধারণার শুরু করতে পারে।

মূলত, ট্রেডাররা এই সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্ট স্তরগুলির উপর ভিত্তি করে মার্কেটের দিকে দেখতে এবং মূল্যের পরিবর্তন বোঝার চেষ্টা করে। সাপোর্ট বা রেজিস্ট্যান্ট স্তরে প্রতিষ্ঠিত হলে, ট্রেডাররা এই স্তরগুলি মূল্য অবস্থান হিসেবে ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারে এবং মূল্যের পরিবর্তনের সাথে সাথে মার্কেটের প্রবাহের সাথে মুখোমুখি হতে পারে।

Categories
জিজ্ঞাসা

ক্যান্ডেল দেখে কিভাবে বুঝব কারেকশন শেষ হয়েছে ?

কেন্ডেল দেখে কিভাবে বুঝবেন কানেকশন ঠিক আছে কি না জানতে নিচের ভিডিওটি দেখুন stockNow সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

Categories
জিজ্ঞাসা

কি ভাবে স্কেনার সেটিং করবো

সার্চ রেজাল্ট ও স্ক্যানার কিভাবে করবেন ও সার্চ রেজাল্ট থেকে কোন গুলি সিলেক্ট করবেন দেখতে নিচের ভিডিওটি ক্লিক করুন এছাড়াও স্টক মার্কেট সম্পর্কে জানতে ও প্রতিদিন মার্কেট আপডেট দেখতে ভিসিট করুন stockNow YouTube channel ধন্যবাদ

Categories
জিজ্ঞাসা

শেয়ার মার্কেট সম্পর্কিত ২৭টি প্রাথমিক পরিভাষা / Share Market Related 27 Basic Terms & Abbreviations.

যারা নতুন শেয়ার মার্কেটে আসতে চাচ্ছেন তাদের শেয়ার মার্কেটে ব্যবহৃত বেসিক কিছু টার্ম সম্পর্কে ধারণা থাকাটা খুব জরুরি। এই টার্ম গুলো সম্পর্কে ধারণা থাকলে আপনি সহজেই শেয়ার মার্কেটের সকল website, news বুঝতে পারবেন ।

চলুন তবে শেয়ার মার্কেটের একদম বেসিক কিছু টার্ম সম্পর্কে খুব সংক্ষেপে জেনে নেওয়া যাক।

Trading CodeLTP*HighLowClosep*YCP*ChangeTradeValue (Mn)Volume
ABC20.82019.920.8200.857038.83319,074
XYZ105.1107.3102.1105.1103.61.599363.91560,808


১. Trading Code/ Stock Symbol :

কোনো একটি নির্দিষ্ট কোম্পানির সংক্ষিপ্ত রূপ যা দ্বারা স্টক এক্সচেঞ্জ কোনো স্টককে সনাক্ত করে।যেমনঃBATBC দ্বারা British American Tobacco Bangladesh Company Limited, ALARABANK দ্বারা  Al-Arafa Islami Bank Limited  কে বোঝায়।

২. LTP/ Last Traded Price:

সর্বশেষ শেয়ারটি কত দামে ক্রয় বিক্রয় হয়েছে।উপরের ছবিতে  XYZ কোম্পানিটি 105.1 টাকা লেনদেন হয়েছে।

৩. High:

আজকের সর্বোচ্চ কত টাকায় শেয়ারটি লেনদেন হয়েছে।

৪. Low:

আজকের সর্বনিম্ন কত টাকায় শেয়ারটি ক্রয় বিক্রয় হয়েছে।

৫. Closep/closing price:

আজকের শেয়ারটি সর্বশেষ কত টাকায় ক্রয় বিক্রয় করা হয়েছে। ট্রেডিং আওয়ার শেষে শেয়ারটি দাম কত দিত।

৬. Change:

একটি শেয়ার গত দিনের তুলনা বর্তমানে কত টাকা হ্রাস/বৃদ্ধি পেয়েছে।  Change=YCP-LTP

৭. %Change:

 গতদিনের দামের তুলনায় আজকে শতকরা কত হ্রাস/বৃদ্ধি পেয়েছে তা বুঝায়।

%change=(LTP-Current Price)×100/Current price

৮. YCP/Yesterday’s closing price.

গতকালের ট্রেডিং আওয়ার শেষে শেয়ারটির মূল্য কত ছিলো তা নির্দেশ করে YCP

৯. Trade:

ট্রেড দ্বারা মোট কতবার লেনদেন হয়েছে তা বুঝায়।

১০. Value:

সর্বমোট কতটাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে তা মিলিয়নে নির্দেশ করে।

১১. 52 weeks Moving Range/52WH-52WL

একটি শেয়ার গত ৫২ সপ্তাহে সর্বোচ্চ কত টাকায় এবং সর্বনিম্ন কত টাকায় লেনদেন হয়েছে তা নির্দেশ করে 52 Week Moving Range,যেমনঃ XYZ শেয়ারের 52 Week Moving Range 81-28,অর্থাৎ৫২ সপ্তাহে XYZ শেয়ারের সর্বোচ্চ মূল্য ছিল 81 টাকা & সর্বনিন্ম মূল্য ছিল ২৮ টাকা (52WH=81, 52WL=28) ।

১২. Ask Price:

একজন বিক্রেতা সর্বনিম্ন যে দামে শেয়ার বিক্রি করতে চায়।

১৩. Bid Price:

একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ যে দামে শেয়ার কিনতে চায়।

১৪. Portfolio:

সামগ্রিক দিক থেকে আপনার সংগৃহীত সকল শেয়ার,স্টক,বন্ড,মিউচু্য়াল ফান্ডে ইত্যাদির সমষ্টি ছক হলো আপনার portfolio.

১৫. Sector/খাতঃ

সমজাতীয় কোম্পানির শেয়ারের গ্রুপকে এক একটি Sector/খাত বলে।

১৬. Share Market Index:

শেয়ার বাজারের নিবন্ধিত সকল শেয়ারের বা নির্বাচিত কিছু শেয়ারের মানদণ্ড /benchmark  হলো শেয়ার বাজারের সূচক।এটি দ্বারা শেয়ার বাজারের কিছু  বা সমস্ত শেয়ারের মান/value  পরিমাপ কে বোঝায় যায়। DSEX,DS30, DSES এগুলো হচ্ছে DSE এর বিভিন্ন Index.

১৭. Circuit Breaker:

Circuit Breaker বলতে একটি নির্দিষ্ট দিনে শেয়ার price এর সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন দামের একটি সীমাকে বোঝায়। সীমা/Range এর বেশি বা কম দামে শেয়ার লেনদেন হতে পারবে না।  

১৮. Circuit low:

একটি শেয়ারের দাম আজকের দিনে সর্বনিম্ন কত হতে পারবে। অর্থাৎ circuit low price এর চেয়ে কম দামে শেয়ার লেনদেন করা যাবে না।

 ১৯. Circuit up:

একটি শেয়ারের দাম আজকে সর্বোচ্চ কত হতে  পারবে। অর্থাৎ circuit up price এর চেয়ে বেশি দামে শেয়ার লেনদেন করা যাবে না ।

২০. Volatility:

শেয়ার price এর দ্রুত up/down হওয়ার বিষয়টিকে বোঝায় volatility.

২১. Bull Market:

শেয়ার মার্কেটে যখন শেয়ারের দাম ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে অর্থাৎ মার্কেট uptrend এ রয়েছে তখন ঐ মার্কেটকে Bull Market বলে।Bull market এ বিনিয়োগকারীরা শেয়ারের দাম বৃদ্ধি পাবে  এই প্রত্যাশা রাখে।
২২. Bear Market:

শেয়ার মার্কেটে যখন শেয়ারের দাম ক্রমাগত হ্রাস পাচ্ছে অর্থাৎ মার্কেট Downtrend এ রয়েছে তখন ঐ মার্কেটকে Bear Market বলে। Bear market এ বিনিয়োগকারীরা শেয়ারের দাম হ্রাস পাবে  এই প্রত্যাশা রাখে।

২৩. Share Category:

শেয়ার বাজারে বিভিন্ন মানদণ্ড অনুযায়ী কোম্পানি গুলোকে বিভিন্ন category তে ভাগ করা হয়েছে।A,B,N,Z শেয়ারের বিভিন্ন category.

২৪. Broker:

যে ব্যক্তি নির্দিষ্ট ফি/ Commission এর বিনিময়ে বিনিয়োগকারীর পক্ষে শেয়ার ক্রয় বিক্রয়রে।

২৫. Bid Ask Spread:

Bid price ও Ask price এর পার্থক্য কে Spread বলে।

২৬. Market Capitalisation:

শেয়ার বাজার একটি কোম্পানির সামগ্রিক মূল্যই হচ্ছে কোম্পানির Market capitalisation.অর্থাৎ একটি কোম্পানির সকল শেয়ারের বর্তমান মার্কেট price  কে Market capitalisation বলে।

২৭. Divident:

কোম্পানির মোট আয়ের যে অংশ শেয়ারহোল্ডারদের কে বিতরণ করা হয়।  শেয়ার মার্কেটে আরো অনেক টার্ম/Abbreviation ব্যবহৃত হয়,সেগুলো জানতে  আমাদের website follow করুন।আর যদি আপনি শেয়ার মার্কেট বিষয়ক অন্য যেকোনো টার্ম জানতে চান তাহলে কমেন্ট করে জানান আমরা তা আপনাকে জানানোর চেষ্টা করব।

Categories
জিজ্ঞাসা

আইপিও কি? আইপিওতে কিভাবে এপ্লাই করতে হয়? আইপিও সম্পর্কে বিস্তারিত./All About IPO.

আইপিও প্রক্রিয়ার মাধ্যমে একটি প্রাইভেট কোম্পানি পাবলিক কোম্পানিতে রূপান্তরিত হয়। আইপিও প্রক্রিয়া বিনিয়োগকারীদের জন্য নিরাপদ বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি করে। আমাদের দেশের বাজারে আইপিও শেয়ারে বিনিয়োগ নিরাপদ এবং এর মাধ্যমে বিনিয়োগকারীর একটি ভালো রিটার্ন পেয়ে থাকে।

আইপিও কি?/ What is IPO?

Initial Public Offering (আইপিও) এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে কোন প্রাইভেট কোম্পানি তার শেয়ারের একটি অংশ বিনিয়োগকারীদের কাছে বিক্রি করে পাবলিক কোম্পানিতে রূপান্তরিত হয়ে থাকে। আইপিও শেয়ারগুলো প্রথমে প্রাইমারি মার্কেটে লেনদেন হয়। প্রাইভেট কোম্পানির ব্যবসায়ের মূলধন বৃদ্ধি করার জন্য আইপিও প্রক্রিয়া এর মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের নিকট নিজেদের শেয়ার বিক্রি করে থাকে। আইপিও শেয়ারগুলি বিনিয়োগকারীদের বন্টনের পর তা সেকেন্ডারি মার্কেটে লেনদেন করা হয়ে থাকে। আইপিও সাধারণত দুই ধরনের হয়।

  • Fixed Price Method
  • Book Building Method

Fixed Price Method

ফিক্স প্রাইস মেথড এ আইপিও শেয়ার গুলির মূল্য ফিক্সট হয়ে থাকে। অর্থাৎ সেই শেয়ারগুলোর মূল্য পরিবর্তন হয় না। আমাদের দেশে যে সকল কোম্পানির ফিক্স প্রাইস অফারিং এর মাধ্যমে শেয়ার মার্কেটে আসে সে কোম্পানির শেয়ার মূল্য 10 টাকা হয়ে থাকে। ফিক্স প্রাইস পদ্ধতিতে শেয়ার মূল্যের সাথে কোন প্রিমিয়াম যোগ হয় না।

Book Building Method

বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে বিডিং এর মাধ্যমে শেয়ারের মূল্য ঠিক করা হয়। এই পদ্ধতিতে যে সকল কোম্পানি শেয়ার বাজারে আসে সে কোম্পানির মূল্য বিবেচনা করে ইলিজিবল বা প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা বিডিং করে থাকে। তাদের বিডিং এর মাধ্যমে শেয়ারের প্রাইস ঠিক করা হয়। বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে কোম্পানির শেয়ারের ফেইস ভ্যালু 10 টাকা থাকে এবং অতিরিক্ত টাকা শেয়ারের প্রিমিয়াম হিসেবে গণ্য হয়। সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য বিডিং প্রাইসের থেকে 10% কমে শেয়ারের প্রাইস নির্ধারণ করা হয়। অর্থাৎ কোন শেয়ারের মূল্য বিডিং এর মাধ্যমে 50 টাকা ঠিক হয় সে শেয়ারের জন্য সাধারণ বিনিয়োগকারীদের 45 টাকা প্রদান করতে হবে।

কিভাবে আইপিও শেয়ারের জন্য আবেদন করবেন? How to Apply for IPO?

আইপিও শেয়ার আবেদন করতে হলে কিছু নিয়ম অনুসরণ করতে হয় এগুলো নিয়েই আমরা এখন আলোচনা করব।

বিও একাউন্ট খোলা 

আইপিওতে আবেদন করতে হলে সর্বপ্রথম আপনাকে নিবন্ধিত ব্রোকারেজ হাউসে একটি বিও অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। বিও অ্যাকাউন্ট কিভাবে খুলতে হয় সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আমাদের এই পোস্টটি অনুসরণ করুন।

দেখুন : শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ শুরুর প্রক্রিয়া

সেকেন্ডারি মার্কেটে বিনিয়োগ

আইপিওতে আবেদন করতে হলে আপনাকে অবশ্যই সেকেন্ডারি মার্কেটে ২০,০০০ টাকার বিনিয়োগ থাকতে হবে। প্রতিটি আইপিও শেয়ার আবেদন শুরুর তারিখের ৫ কর্মদিবস আগে একটি কাট অফ ডেট নির্ধারণ করা হয়। ওই cut-off ডেটে আপনার বিও একাউন্টের ম্যাচিওর শেয়ারের মার্কেট প্রাইস সর্বনিম্ন ২০ হাজার টাকা হলে আপনি আইপিওতে আবেদন করতে পারবেন। Cut-off ডেটের পরে আপনি আপনি চাইলে শেয়ার গুলো বিক্রি করে দিতে পারবেন। আপনি কোন শেয়ার কতদিন পর ম্যাচিওর হয় তা জেনে 20000 টাকার কিছু বেশি টাকার শেয়ার কিনুন যাতে শেয়ারের দাম কিছু কমে গেলেও আইপিও আবেদন করতে আপনার কোন সমস্যা না হয়।

Cut off date

অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম পূরণ ও টাকা জমা

এখন আপনাকে বোকারেজ হাউজ কর্তৃক নির্ধারিত আইপিও অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম পূরণ করতে হবে। অনেক ক্ষেত্রে ব্রোকারেজ হাউজকে জানালে তারা নিজেরাই আপনার হয়ে আইপিওর জন্য আবেদন করে দেয়। আপনি যত টাকার জন্য আইপিও আবেদন করবেন সেই টাকা আপনার বিও একাউন্টে থাকতে হবে। আপনি ১০/২০/৩০/৪০ বা সর্বোচ্চ 50 হাজার টাকার আইপিওর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আইপিও শেয়ার বন্টন

আইপিও শেয়ার আর আগের মত লটারির মাধ্যমে বন্টন করা হয় না। এখন যারা যারা আইপিওতে আবেদন করবেন তারা সকলেই কিছু না কিছু শেয়ার পাবেন আইপিও শেয়ার বন্টন হয় কোম্পানি কত টাকার শেয়ার বাজারে ছেড়েছে এবং বিনিয়োগকারীরা মোট কত টাকার শেয়ারের জন্য আবেদন এর অনুপাত এর ভিত্তিতে। সুতরাং আপনি যত টাকার শেয়ারের জন্য আবেদন করবেন সেই অনুপাতে আপনি শেয়ার পাবেন আপনি যত বেশি টাকার শেয়ার এর জন্য আবেদন করবেন ততবেশি শেয়ার পাবেন। অর্থাৎ আপনি যদি 10 হাজার টাকার শেয়ারের জন্য আবেদন করে 100 টি শেয়ার পান তাহলে 50000 টাকার শেয়ার এর জন্য আবেদন করলে 500 টি শেয়ার পাবেন।

IPO Share Distribution Quota

প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী/ Institutional Investor — ৪০%

সাধারণ বিনিয়োগকারী/General Investor— ৪০%

ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারী/ Affected Investor— ১০%

 প্রবাসী বিনিয়োগকারী/Non resident Investor—- ১০%

অর্থাৎ কোন কোম্পানির যদি 100 টি শেয়ার ছাড়ে তাহলে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মধ্যে 40 টি, সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে 40 টি ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের মধ্যে 10 টি এবং প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের মধ্যে 10 টি শেয়ার বন্টন করা হবে।

এই পোস্টের মাধ্যমে আমরা চেষ্টা করেছি আইপিও সম্পর্কে আপনাদের কিছুটা ধারনা দেওয়ার। আপনাদের যদি আরো কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন আমরা সে সম্পর্কে আপনাদের অবহিত করার চেষ্টা করব।

শুনে নয় জেনে-বুঝে শিখে বিনিয়োগ করুন।

Categories
জিজ্ঞাসা

ডিভিডেন্ট কিভাবে ক্যালকুলেট করবেন?/ All About Dividend?

শেয়ারবাজার ঝুঁকিপূর্ণ, তবুও আমরা শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করি মুনাফা লাভের উদ্দেশ্যে। শেয়ারবাজারে দুইভাবে মুনাফা লাভ করা যায়।

  1. ক্যাপিটাল গেইন 
  2. ডিভিডেন্ড

ক্যাপিটাল গেইন কি?/What is capital gain

 একটি শেয়ার কম দামে বিক্রি করে বেশি দামে বিক্রি করলে যে লাভ হয় সেটি হচ্ছে ক্যাপিটাল গেইন। একটি শেয়ার 10 টাকা কিনে 20 টাকায় বিক্রি করলে যে 10 টাকা লাভ হয় এটিই হচ্ছে ক্যাপিটাল গেইন।

ডিভিডেন্ড কি?/What is dividend

কোম্পানি লাভের যে অংশ শেয়ারহোল্ডারদের প্রদান করে ওই অংশকে ডিভিডেন্ড বলে। কোম্পানি ব্যবসা করে যে লাভ করে ওই লাভ থেকে বা সংরক্ষিত মুনাফা থেকে তার শেয়ারহোল্ডারদের ডিভিডেন্ড দিতে পারে। শেয়ারহোল্ডারদের ডিভিডেন্ড না দিয়ে কোম্পানি পুনঃবিনিয়োগের  জন্য মুনাফা ব্যবহার করতে পারে। কোম্পানি সাধারণতঃ প্রতি বছরে একবার ডিভিডেন্ট প্রদান করে থাকে এছাড়াও কোম্পানি চাইলে বছরের মধ্যবর্তী সময়ে  ডিভিডেন্ট প্রদান করতে পারে যেটাকে ইন্ট্রিম ডিভিডেন্ট বলা হয়।

ডিভিডেন্ড প্রদানের প্রক্রিয়া

  1. কোম্পানি ব্যবসার মাধ্যমে মুনাফা করে।
  2. কোম্পানি ব্যবস্থাপকরা নির্ধারণ করে মুনাফার কতটুকু শেয়ারহোল্ডারের মাঝে বিতরণ করবে এবং কতটুকু তারা ব্যবসায়ী পুনঃবিনিয়োগ করবে।
  3. কোম্পানির পরিচালকরা ডিভিডেন্ড প্ল্যান অনুমোদন প্রদান করে।
  4. কোম্পানি ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেন।
  5. রেকর্ড ডেট এ যারা শেয়ার হোল্ড করে তাদের মাঝে ডিভিডেন্ড বন্টন করা হয়।

ডিভিডেন্ট প্রদানের মাধ্যম

আমাদের দেশে সাধারণত দুইভাবে ডিভিডেন্ড বন্টন করা হয় ।

  • নগদ অর্থ প্রদান
  • বোনাস শেয়ার প্রদান

নগদ অর্থ প্রদান/Cash Dividend

কোম্পানি যখন নগদ অর্থ ডিভিডেন্ড হিসেবে প্রদান করে তখন একজন শেয়ারহোল্ডার যতটুকু ডিভিডেন্ট পাবে তা তার ব্যাংক একাউন্টে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

Calculation of Cash Dividend

ধরুন আপনার কাছে এবিসি কোম্পানির 500 টি শেয়ার আছে আছে । প্রতিটি শেয়ার ক্রয় করেছিলেন 25 টাকা মূল্য। এবছর এবিসি কোম্পানি 20 পার্সেন্ট নগদ মুনাফা ঘোষণা করল তাহলে আপনি কত টাকা মুনাফা পাবেন।

আমাদের দেশে মুনাফা প্রদান করা হয় শেয়ারের face value উপর। এবং প্রতিটি শেয়ারের face value সাধারণত 10 টাকা হয়ে থাকে। আপনি শেয়ার যত দামে কিনুন না কেন শেয়ারটির face value 10 টাকা এবং ওই face value এর উপরে আপনি মুনাফা বা ডিভিডেন্ড পাবেন। সুতরাং এবিসি কোম্পানি যেহেতু 20 পার্সেন্ট মুনাফায় ঘোষণা করেছে তাহলে আপনি প্রতি শেয়ারে দুই টাকা করে মুনাফা পাবেন। আপনার যেহেতু 500 টি শেয়ার আছে তাহলে আপনি সর্বমোট 1000 টাকা মুনাফা পাবেন। এই 1000 টাকা থেকে সোর্স  ট্যাক্স বা উৎস কর হিসেবে দশ পার্সেন্ট অর্থাৎ 100 টাকা কেটে রাখবে সুতরাং আপনার ব্যাংক একাউন্টে সর্বমোট 900 টাকা কোম্পানি পাঠিয়ে দিবে।

শেয়ার প্রতি মুনাফা  ১০*২০% = ২.০০

সর্বমোট শেয়ারের সংখ্যা =৫০০

মোট প্রদেয় মুনাফার পরিমাণ =১০০০.০০

উৎস কর।            ১০০০*১০%=১০০.০০

মোট প্রাপ্য মুনাফা।  = ৯০০.০০

বোনাস শেয়ার প্রদান/Bonus Share

কোম্পানির চাইলে নগদ অর্থ না দিয়ে বোনাস শেয়ার দিতে পারে অথবা বোনাস শেয়ার ও নগদ অর্থ দুটোই প্রদান করতে পারে। বোনাস শেয়ার ইস্যু করলে কোম্পানির শেয়ার সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। যেহেতু বোনাস শেয়ার পূর্ববর্তী মার্কেট প্রাইস এর সঙ্গে অ্যাডজাস্ট করা হয় তাই কোম্পানির মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন পরিবর্তন হয় না।

Calculation of Bonus Share

বোনাস শেয়ার প্রদান করা হয় আপনার হোল্ড কৃত শেয়ার সংখ্যার উপর। আপনি যদি কোন কোম্পানির 1000 শেয়ার হোল্ড করেন এবং ওই কোম্পানিতে যদি 10 পার্সেন্ট বোনাস শেয়ার প্রদান করে তাহলে আপনি বোনাস শেয়ার হিসেবে পাবেন ১০০০*১০%=১০০ টি শেয়ার।

Categories
জিজ্ঞাসা

সফল বিনিয়োগকারীদের ৭টি গুরুত্বপূর্ণ অভ্যাস/ 7 Habits of Successful Investor

শেয়ার মার্কেটে সফল হতে হলে কিছু নিয়মকানুন অবশ্যই পালন করতে হয়। সফল বিনিয়োগকারী হতে হলে আপনাকে কিছু অভ্যাস অবশ্যই গড়ে তুলতে হবে। শেয়ার মার্কেটে সফল কিছু বিনিয়োগকারীদের দিকে খেয়াল করলে আমরা দেখতে পারবো কিছু অভ্যাস বা নিয়ম কানুন তারা সকলেই অনুসরণ করে। এসকল অভ্যাস বা নিয়মকানুন থেকে 7 টি গুরুত্বপূর্ণ অভ্যাস নিয়ে আজকে আমরা আলোচনা করব। চলুন শুরু করি।

১) ধৈর্য, ধৈর্য এবং ধৈর্য

সফল বিনিয়োগকারীরা ধৈর্য সহকারে বসে থাকে, কখন একটি ট্রেড করার অপরচুনিটি বা সুযোগ তৈরি হবে। তারা মার্কেটের পেছনে ছুটে না। তারা অপেক্ষা করে মার্কেট কখন তাদের দিকে আসবে। আমরা একটি শেয়ার কেনার পর বসে থাকি কখন এটি বিক্রি করব। আমরা সঠিক শেয়ার নির্বাচন করলেও অন্যেরা যে দিকে ছুটছে সেদিকে ছোটার জন্য তাড়াহুড়া করি। অপরদিকে সফল বিনিয়োগকারীরা ধৈর্য সহকারে বসে থাকে। তারা ধৈর্য ধারণ করে যতক্ষণ না পর্যন্ত একটি ভালো ট্রেডের সুযোগ তৈরি হয়। আমরা একটি ট্রেড করার পর সারাক্ষণ প্রতিটি মুহূর্ত স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকি দেখে যে শেয়ারের দাম বাড়ছে না কমছে। যা আমাদের মধ্যে স্ট্রেস তৈরি করে এবং পরবর্তী ট্রেড করতে ধাবিত করে। কিন্তু সফল বিনিয়োগকারীরা একটি ট্রেড করে সারাক্ষণ স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকে না। তারা অপেক্ষা করে কখন শেয়ারটির ট্রেড করার ভালো সুযোগ তৈরি হবে। সুতরাং আমাদের উচিত ধৈর্য ধারণ করা। সুযোগের অপেক্ষা করা। তাহলে আমরা সফল হতে পারবো।

২) দুশ্চিন্তা না করে যে সকল বিষয় আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি ওই দিকে লক্ষ রাখা

আমরা একটা শেয়ার কেনার পর শেয়ারের দাম বাড়বে না কমবে, এই ট্রেড এ আমরা কি লাভ করতে পারবো নাকি পারবো না, ট্রেডটির রেজাল্ট কি হবে সেই নিয়ে দুশ্চিন্তা করি। কিন্তু আমরা ভাবি না যে আমাদের দুশ্চিন্তা শেয়ারটির দাম বাড়ার বা কমার ক্ষেত্রে কোনো প্রভাব ফেলবে না।  সফল বিনিয়োগকারীরা ট্রেড এর ফলাফল নিয়ে দুশ্চিন্তা করে সময় নষ্ট করে না। বরং তারা যে সকল বিষয় দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে সেগুলো নিয়ে চিন্তা করে। তারা কখন বিনিয়োগ করবে, কখন বিনিয়োগ করবে না, কখন একটি ট্রেডিং এন্ট্রি নেবে, কখন থেকে বের হয়ে যাবে, কোন শেয়ারে বিনিয়োগ করবে, কখন স্টপ লস নিবে, কত টাকার কোন সেক্টরের শেয়ার কিনবে এগুলো নিয়ে চিন্তা করে। সুতরাং যে সকল বিষয় আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না সেগুলো নিয়ে দুশ্চিন্তা না করে, কি করলে আমরা সফল হতে পারব সেগুলোর পেছনে সময় ব্যয় করা উচিত।

৩) শেয়ার কখন বিক্রি করব তা আগেই ঠিক করা

আমরা যখন অনেক এনালাইসিস করে একটি শেয়ার কিনি, বেশিরভাগ সময় আমরা জানি না আমরা কখন শেয়ারটি বিক্রি করব। শেয়ারের দাম বাড়লে আমরা এই আশা নিয়ে বসে থাকি যে শেয়ারের দাম হয়তো আরও বাড়বে। পরে দেখা পরে হয়তো শেয়ারের দাম আরও কমে যায় এবং আমরা ফ্রাস্ট্রেটেড হয়ে শেয়ারটি লসে বিক্রি করে দেই। আবার শেয়ারের দাম যখন কমে যায় তখন আমরা এভারেজ করি, আবার এভারেজ করি। দাম আরও কমে গেলে আমরা শেয়ারটি তে আটকে যাই অথবা অনেক লস দিয়ে বের হয়ে যাই। সফল বিনিয়োগকারীরা আগেই ঠিক করে শেয়ারটি তারা কখন বিক্রি করবে। তারা এনালাইসিস এর মাধ্যমে আগে থেকেই ঠিক করে নেয় কতটুকু দাম বাড়লে বা কতটুকু দাম কমলে শেয়ার বিক্রি করবে।

৪) ভুল থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা

আমরা একটি ভুল ট্রেড করলে তা ভুলে গিয়ে নতুনভাবে নতুন ট্রেডের চিন্তা করি। আমরা এনালাইসিস করিনা যে কেন এই ভুলটি হলো, কি করলে ভুলটি এড়ানো যেত, কোথায় ডিসিশন নেওয়ার ভুল ছিল। ফলে ভবিষ্যতে ভুলটি পুনরায় ঘটে। সফল বিনিয়োগকারীরা কোন ভুল করলে তারা ভুলের কারণ, কি করলে আরো ভালো করা যেতো সেগুলো অনেক গবেষণা করেন। যাতে ভবিষ্যতে ভুলের পুনরাবৃত্তি না ঘটে।

৫) ট্রেডিং এর ক্ষেত্রে একটি সিস্টেম অনুসরণ করা

আমরা ট্রেডিং এর ক্ষেত্রে নিজেদের ইমোশনকে বেশি প্রাধান্য দেই। যে শেয়ারে বিনিয়োগ করলে লাভ হবে বলে আমাদের মনে হয়, সেই শেয়ারে বিনিয়োগ করি। আমাদের যখন মনে হয় তখন আমরা শেয়ার ক্রয় করি এবং বিক্রয় করি কিন্তু শেয়ার মার্কেটে ইমোশনের কোন মূল্য নেই। সফল বিনিয়োগকারীরা সকল ক্ষেত্রেই কিছু সিস্টেম নিয়ম প্রক্রিয়া অনুসরণ করেন। সফল বিনিয়োগকারীরা শেয়ার নির্বাচনের ক্ষেত্রে কি কি ফান্ডামেন্টাল বিষয় দেখবেন, শেয়ার ক্রয় বিক্রয় কি কি টেকনিক্যাল ফ্যাক্টর দেখবেন সকল কিছুই সিস্টেমেটিক্যালি করে থাকেন।

৬) প্রত্যেক নতুন ট্রেড এর ক্ষেত্রে নতুন করে চিন্তা করা

আচ্ছা একটি কয়েন যদি 99 বার টচ করার পর 99 বাড়ি হেড পরে তাহলে 100 তম বারে হেডফোনের সম্ভাবনা কতটুকু। 50 – 50। আপনি কয়েকটি ট্রেডে একই নিয়ম ফলো করে লাভ করেছেন। পরবর্তী ট্রেডে যে একই নিয়ম ফলো করে লাভ করতে পারবেন সে বিষয়ে কোনো নিশ্চয়তা নেই। কয়েকটি সফল ট্রেডার পর আমরা যদি ওভার কনফিডেন্ট হয়ে আরো বেশি টাকা ঐরকম ট্রেডে ব্যবহার করি, ফলে, আমরা অনেক সময় বড় ক্ষতির সম্মুখীন হই। সুতরাং সকল নতুন ট্রেড এর ক্ষেত্রে নতুন করে এনালাইসিস করে ট্রেডে এন্ট্রি নেওয়া উচিত। 

৭) লোভে বা প্ররোচনায় পড়ে বিনিয়োগ না করা

আমরা অনেক সময় মার্কেটে যে শেয়ারের দাম বাড়ছে, ঐ শেয়ারটি যদি ভালো নাও হয় তারপরও আমরা অতিরিক্ত লাভের আশায় ঐ শেয়ারে বিনিয়োগ করে থাকি। ফলে বেশীরভাগ সময় আমরা বড় ক্ষতির সম্মুখীন হই। সফল বিনিয়োগকারীরা কখনো লোভে পড়ে বিনিয়োগ করে না। তারা একটি শেয়ারের মূল্য অতিমূল্যায়িত বা অবমূল্যায়িত আছে কিনা তা বিবেচনা করে শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগ করে থাকে। সুতরাং আমাদের উচিত কখনোই লোভে বা অতিরিক্ত লাভের আশায় বিনিয়োগ না করা।

আজকে আমরা শেয়ার মার্কেটে সফল হওয়ার জন্য কিছু টিপস জানলাম আমরা শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এগুলো অনুসরণ করার চেষ্টা করব এবং শেয়ার মার্কেট সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করে আমাদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে শেয়ার মার্কেটে সফল হওয়ার চেষ্টা করব। আজ এই পর্যন্তই। ভালো থাকবেন।

Categories
জিজ্ঞাসা

Technical Analysis

Technical Analysis is the study of price movement. The analyst usually studies the price action on the stock market by the use of quantitative techniques and charts. By looking at charts, you can identify trends and patterns which can help you find good trading opportunities. Simply put, technical analysis is the study of prices, with charts being the primary tool. The purpose of this type of analysis is to forecast overall price trends. A company's financial statements are less important in this type of analysis. Investors using technical analysis often use the advance-decline line, a tool that determines the difference between the number of stocks dropping in price and the number of stocks rising in price. Investors can create a net advance by subtracting total number of dropping prices from total number of advancing prices.
The roots of modern-day technical analysis stem from the Dow Theory developed around 1900 by Charles Dow. And of course, the widely followed Dow Jones Industrial Average is a direct offspring of the Dow Theory.
Technical analysis is based on three major conclusions about the market:
1. Price Discounts Everything:
2. Price Moves In Trends
3. Price Movements Are Historically Repetitive

Categories
জিজ্ঞাসা

আপনাদের পেইড ভার্শন নিলে কি আমি ইচ্ছে মতো মুভিং অ্যাভারেজ সেট করতে পারবো ?

ধন্যবাদ আপনার প্রশ্নের জন্য , আপনার উত্তরটি হলো মুভিং অ্যাভারেজ সেট করার জন্য আপনাকে StockNow VIP / পেইড ব্যবহারকারী হতে হবে না । stockNow ফ্রি ভার্সনেই আপনি ইচ্ছে মতো মুভিং অ্যাভারেজ সেট করতে পারবেন ।

Categories
জিজ্ঞাসা

ফ্লোর প্রাইজ থেকে উঠে আসা শেয়ার গুলো আমি কিভাবে বুঝতে পারবো আগে থেকেই, আমি কি ভাবে সেট করবো stockNow এ, জানাবেন দয়াকরে।

ফ্লোর প্রাইস এবং ফ্লোরের উপরের স্টক গুলির তালিকা কিভাবে সার্চ করবেন | Floor price and above floor ?জানতে নিচের দেয়া ভিডিও লিংক এ ক্লিক করে দেখে নিন বিস্তারিত https://youtu.be/Xncymhu6l0I